২৪শে অক্টোবর, ২০২১ ইং ।। রবিবার ।। ৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ।। নিবন্ধনের জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় আবেদনকৃত অনলাইন পত্রিকা www.jhalokathisomoy.com

সাম্প্রদায়িক, মৌলবাদী ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী ছাড়া যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ সাইটের তথ্য, ছবি বা ভিডিও প্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারবেন-সম্পাদক

বিশখালি নদীতে ৪দিন ধরে ডুবো চরে আটকে আছে লঞ্চ

ঝালকাঠির রাজাপুরের বিশখালি নদীতে সিগন্যাল বাতি না থাকায় ঢাকা টু বরগুনাগামী পূবালী-১ নামের একটি দোতলা লঞ্চ ডুবোচরে ৪দিন ধরে আটকা পড়েআছে। উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের চরপালট এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, গত ১২ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ৩টার দিকে হঠাৎ ঝড়-বাতাস শুরু হলে ওই লঞ্চটি সাড়ে ৩শ’ যাত্রী নিয়ে ডুবোচরে আটকে যায়। এতে লঞ্চে থাকা যাত্রীরা  চরম দুর্ভোগে পড়েন। পরে লঞ্চের কিছু যাত্রী রাজারহাট-বি নামে আরেকটি  লঞ্চে গন্তব্যে পৌছায়। বাকিরা যাত্রীরা সকালে রওনা হন।

গত ১৩ আগস্ট একই স্থানে অভিযান-১০ নামে একটি লঞ্চ আটকে গিয়েছিলো।  ১৫দিন পরে সে লঞ্চটিকে উদ্ধার করা হয়েছিলো।

পূবালী-১ লঞ্চের ইনচার্জ মাস্টার মো. জহিরুল ইসলাম জানান, নৌপথে বিভিন্ন স্থানে সিগন্যাল থাকার কথা থাকলেও ঢাকা টু বরগুনার পথে ঝালকাঠির পরে আর কোন সিগন্যাল নেই। যে কারণে হঠাৎ করে দিক নির্নয় বা কোনটা ডুবোচর তা দূর থেকে অনুমান করা যায় না। আর রাতে সিগন্যাল বাতি না থাকায়  জোয়ারের পানিতে আরও বিপাকে পড়তে হয়। ঘটনার  রাতে হঠাৎ ঝড়-বৃষ্টি শুরু হলে কিছু বুঝে উঠার আগেই লঞ্চ ডুবোচরে বেঁধে যায়, বলেন পূবালী-১ লঞ্চের ইনচার্জ মাস্টার মো. জহিরুল ইসলাম।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ বরিশাল নদী বন্দর ও পরিবহন বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মোহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, ঘটনা স্থলে দুইজন প্রতিনিধি পাঠানো হয়েছে। তাদের প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যেসব স্থানে সিগন্যাল নেই সে সেসব স্থানে শীঘ্রই সিগন্যাল বাতি স্থাপনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

(সংবাদদাতা/ডেস্ক/বাস/ঝাস)


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo
সম্পাদক ও প্রকাশক : পলাশ রায়
১৪, রীডরোড, শহীদ স্মরণি, ঝালকাঠি ৮৪০০
ইমেইল : [email protected]
মুঠোফোন : ০১৭১২ ৫১ ৭৫ ৪৬
© All rights reserved © 2019