১২ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং ।। শুক্রবার ।। ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ।। নিবন্ধনের জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় আবেদনকৃত অনলাইন পত্রিকা www.jhalokathisomoy.com

সাম্প্রদায়িক, মৌলবাদী ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী ছাড়া যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ সাইটের তথ্য, ছবি বা ভিডিও প্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারবেন-সম্পাদক

প্রতিবন্ধী রিনার পাশে দাড়ালেন অনেকে

শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধী রিনা আক্তার (২৫)। বাবা মোজাম্মেল হক খুলনা জুট মিলে দারোয়ানের চাকুরির সুবাদে সেখানেই শৈশবেই ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে ডান হাত ও ডান পা হারায় রিনা।

এরপর জীবনের সে গল্পে আরও ট্রাজিডি। দুই মেয়েকে রেখে প্রায় ১৫ বছর আগে মারা যান রিনার বাবা।  স্বামী মারা যাওয়ার পর দুই মেয়েকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি ঝালকাঠির রাজাপুরের গালুয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের পুটিয়াখালিতে একটি খুপড়ি ঘরে কোনমতে মানবেতর জীবনযাপন করছিলেন জয়নব বিবি।

ভিক্ষা ও প্রতিবেশীদের সাহায্যেই চলতো  সংসার। তিনিও কিছুদিন আগে মারা যান। এতিম দু’বোন কোনমতে ওই খুপড়িতে  অর্ধা অনাহারে বসবাস করতো প্রতিবেশীদের সহযোগিতায়। ঝড় বৃষ্টি এলে ছোট খুপড়ি ঘরটিতে পানি পড়ত, ভিজে যেত সব। নিরুপায় হয়ে পাশের বাড়িতে আশ্রয় নিতে হতো তাদের।

প্রতিবন্ধী রিনা আক্তারের এ দুঃখ-দুর্দশা কথা প্রতিবেশী কলেজ ছাত্র মেহেদি হাসান  বিষয়টি নিয়ে অনেকের সাথে আলোচনা করে। প্রচার হয় গণমাধ্যমেও। পরবর্তীতে খবর পেয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৬ হাজার টাকা, দুই বান ঢেউটিন পায় তারা।

এদিকে এলাকার  খাইরুল মুন্সী, হেদায়েত, জিয়াউজ্জামান পল্টু ,সৈয়দ আবীর, সজল,  রুস্তুম, রাজ্জাক , রব মুন্সী,  মনির মুন্সী,  সৈয়দ বাপ্পিসহ আরও কয়েকজন মিলে আর্থিক সাহায্য করেন।

আর মিরাজ খান, সৈয়দ সাহাদাৎ ও মেহেদি হাসান তদারকিতে  দ্রুত সময়ের মধ্যেই রিনা আক্তারকে টিনের ঘর তুলে দেয়া হয়। বর্তমানে সেই ঘরেই প্রতিবন্ধী রিনা আক্তার বসবাস শুরু করেছেন। এসব বিষয়ের খবর পেয়ে সোমবার দুপুরে বৈদ্যুতিক মিটার, যাবতীয় সরঞ্জাম ও পল্লী বিদ্যুতের উপজেলা জুনিয়র প্রকৌশলী আশিকুর রহমানসহ কয়েকজন লাইনম্যানকে নিয়ে ওই বাড়িতে হাজির হন রাজাপুর পল্লী বিদ্যুৎতের সাব জোনাল অফিসের এজিএম রাজন কুমার দাস। তিনি বলেন, তিনি ব্যক্তিগতভাবে মিটার ফি, ওয়ারিংয়ের তার, লাইট, সুইচ, বোর্ড ও ইলেকট্রিশিয়ান ফি নিজে পরিশোধ করে প্রতিবন্ধী রিনা আক্তারকে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ঘর আলোকিত করে দেয়া হয়েছে।

(সংবাদদাতা/বাস/ঝাস)


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo
সম্পাদক ও প্রকাশক : পলাশ রায়
১৪, রীডরোড, শহীদ স্মরণি, ঝালকাঠি ৮৪০০
ইমেইল : jhalokathisomoy@gmail.com
মুঠোফোন : ০১৭১২ ৫১ ৭৫ ৪৬
© All rights reserved © 2019
Developed BY : Website-open