২৪শে অক্টোবর, ২০২০ ইং ।। রবিবার ।। ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ ।। নিবন্ধনের জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় আবেদনকৃত অনলাইন পত্রিকা www.jhalokathisomoy.com

সাম্প্রদায়িক, মৌলবাদী ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী ছাড়া যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ সাইটের তথ্য, ছবি বা ভিডিও প্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারবেন-সম্পাদক

ঝালকাঠির আড়াই কোটি টাকার আমড়া ছড়াবে সরাদেশে

বছরের শুরুতেই দফায় দফায় বৃষ্টি ও সাম্প্রতিক বন্যার কারণে ঝালকাঠিতে ভরা মৌসুমেও আমড়ার ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না কৃষক। দেশের বিভিন্ন স্থানের বাজারগুলোতে আমড়ার দাম কম থাকায় কৃষক ও পাইকারা হতাশায়। কৃষি বিভাগ বলছে, দুযোর্গসহ আমড়া চাষে চাষিদের জন্য প্রয়োজন বিশেষ প্রশিক্ষণ ও প্রকল্প গ্রহণ। তবু মৌসুম জুড়ে আড়াই কোটি টাকার আমড়ার উৎপাদন হবে এ বছর।

এবছর শুরুতেই শীলাবৃষ্টিসহ অতিবৃষ্টি লেগেই আছে। সেই সাথে সাম্প্রাতিক বন্যার পানি জমে থাকায় ঝালকাঠির আমড়া চাষিদের জন্য দুর্দিন বয়ে এনেছে। এবছর আমড়ার ফলন যেমন কম হয়েছে, সেই সাথে গাছ থেকে আমড়া ঝড়ে ঝড়ে পড়ে গেছে। কালচে দাগ এবং আকারেও হয়েছে ছোট । ফলে ভাল দাম নেই পাইকারী বাজারে। বরিশালের আমড়া নামে সারাদেশে যে সুস্বাদু আমড়া সরবরাহ হয়, তার বড় অংশ ঝালকাঠির গ্রামগুলো থেকেই যোগান দেয়া হয়। বাংলা ভাদ্র ও আশ্বিন এই দু’মাস আমড়ার মৌসুম। মৌসুমকে কেন্দ্র করে এখন মাঝামাঝি সময় ঝালকাঠির প্রধান ভাসমান বাজার ভীমরুলি গ্রামের ভীমরুলি খালে শতশত আমড়ার নৌকা ভাসার কথা ছিল। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এবারের চিত্র বদলে গেছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পাইকার ও ফড়িয়ারা এখান থেকে আমড়া কিনছেন ৮’শ থেকে ১ হাজার টাকা মন দরে। যা গত বছর ১৫’শ থেকে ১৮’শ টাকা ছিল। সেই সাথে আমড়ার ফলনও হয়েছে গত বছরের তুলনায় অনেক কম। আর এ কারণে ঝালকাঠির চাষিদের পাশাপাশি দূর-দূরান্ত থেকে আসা ফড়িয়া ও পাইকারদের মুখেও হতাশা কথাই শোনা যাচ্ছে।

ঝালকাঠি কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, আমড়া চাষের জন্য কৃষি বিভাগের আলাদা কোন প্রকল্প নেই। দুর্যোগসহ আধুনীক পদ্ধতিতে আমড়া চাষের জন্য প্রয়োজন কৃষি বিভাগের আলাদা প্রকল্প ও কৃষক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা। কৃষি বিভাগ বর্তমান অবস্থায় নানা ভাবে পরামর্শ দিয়ে কৃষকদের পাশে রয়েছে বলেও জানান ঝালকাঠির কৃষি বিভাগের এ কর্মকর্তা।

ঝালকাঠির জেলায় এবছর ৭২০ হেক্টর জমিতে আমড়ার চাষ হয়েছে। জেলার ৫ হাজার চাষি হেক্টর প্রতি ১৫ মেন্ট্রিকটন ফলন পাচ্ছেন। প্রতিকূল পরিবেশ থাকলেও এ বছর ঝালকাঠির চাষিদের উৎপাদিত আমড়া থেকে আড়াই কোটি টাকা আয় হবে বলে কৃষি বিভাগ আশা করছে।

(ডেস্ক/বাস/ঝাস)


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo
সম্পাদক ও প্রকাশক : পলাশ রায়
১৪, রীডরোড, শহীদ স্মরণি, ঝালকাঠি ৮৪০০
ইমেইল : [email protected]
মুঠোফোন : ০১৭১২ ৫১ ৭৫ ৪৬
© All rights reserved © 2019